আসছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এয়ারক্রাফট

আসছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এয়ারক্রাফট

বিশ্বের সবচেয়ে বড় এয়ারক্রাফট বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে আগামী বছর থেকে। বৃটিশ কোম্পানি হাইব্রিড এয়ার ভেইকলস বিশাল এই উড়োজাহাজ নিয়ে আসতে চলেছে বাজারে। এতে করে বিশ্বের উন্নত কয়েকটি দেশে অ্যাডভাঞ্চার প্রিয় পর্যটকরা আকাশে উড়ার ভিন্ন অভিজ্ঞতা পাবেন।

‘এয়ার লেন্ডার টেন’ নামের বিশাল এই এয়ারক্রাফটের দৈর্ঘ্য ৩০২ ফুট, উচ্চতা ৮৫ ফুট ৪ ইঞ্চি। বেশ কয়েক বছর ধরে এটি নিয়ে গবেষণা চালাচ্ছে বৃটিশ কোম্পানিটি। আর দশটি উড়োজাহাজের মতো দেখতে নয় বিশেষ এই এয়ারক্রাফটটি।

সম্প্রতি সিভিল এভিয়েশন অথরিটি উড়োজাহাজটিকে আকাশে উড়ার অনুমোদন দেয়ায় এর নির্মাতা কোম্পানি বেশ খুশি। এয়ারক্রাফটটির প্রথম একটি প্রোটোটাইপ ২০১২ সালে তৈরি করা হয়। মূলত আমেরিকান সেনাবাহিনীর জন্য এটি তৈরি করা হয়েছিল। কোম্পানির চেয়ারম্যানের স্ত্রী মার্থা গুয়েনের নামে সেটির নাম দেয়া হয়। উড়োজাহাজটি দেখতে অনেকটা মানুষের পশ্চাৎদেশের মতো বলে বেশ আলোচিত হয়।

২০১৬ ও ২০১৭ সালে পরীক্ষামূলক উড্ডয়নের পর ল্যান্ড করতে গিয়ে উড়োজাহাজটি কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছিল। তবে সেই সমস্যা কাটিয়ে এখন বাণিজ্যিকভাবে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এয়ারক্রাফটটি ২০২০ সালেই যাত্রী নিয়ে আকাশে উড়ার স্বপ্ন দেখছে। এর ভেতরে আছে বিলাসবহুল ডিজাইন করা লাউঞ্জ। এটাচ বাথরুম সহ বেডরুম আছে এতে। ভেতরের ফ্লোর কাঁচের তৈরি, যাতে করে যাত্রীরা আকাশে উড়ার পর নিচের দৃশ্য দেখার সুযোগ পাবেন।

উড়োজাহাজটি যেকোনো খোলা জায়গাতেই ল্যান্ড করতে সক্ষম। এটি ১০ হাজার কেজি ওজন ধারণ করতে পারবে। ঘণ্টায় ১৪৮ কিলোমিটার বেগে উড়তে পারে এটি। ২০১৭ সালে চতুর্থবারের পরীক্ষামূলক উড্ডয়নে উড়োজাহাজটি ৩,৫০০ ফুট ওপর দিয়ে উড়তে সক্ষম হয়।

পর্যটকরা তাদের ছুটির দিনগুলোতে যেন বিশাল এই উড়োজাহাজে চড়ে আকাশে উড়ে ভিন্ন অভিজ্ঞতা পান, সেই লক্ষ্যেই কাজ চালিয়ে যাচ্ছে নির্মাতা কোম্পানিটি। এছাড়া পর্যবেক্ষণমূলক কাজে, দুর্গম এলাকায় ত্রাণ পৌঁছানো, অনুসন্ধান ও উদ্ধার কাজে উড়োজাহাজটিকে কাজে লাগানো যাবে বলে আশা করছে নির্মাতা কোম্পানি।

তথ্যসূত্র : স্কাই নিউজ

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *