স্মার্টফোনের বিক্রি বিশ্বে প্রথমবারের মতো কমেছে

স্মার্টফোনের বিক্রি  বিশ্বে প্রথমবারের মতো কমেছে

বিশ্বে প্রথমবারের মতো কমেছে স্মার্টফোনের বিক্রি। গত বছরের হিসাবে আগের বছরের চেয়ে বিশ্বে স্মার্টফোনের বিক্রি কমেছে ৪ শতাংশ।বাজার গবেষণা ও নজরদারির প্রতিষ্ঠান কাউন্টার পয়েন্ট জানাচ্ছে, শুধুমাত্র ২০১৮ সালের শেষ প্রান্তিকে বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোনের বিক্রি কমেছে ৭ শতাংশ। আর বার্ষিক হিসেবে সেটি দাঁড়িয়েছে ৪ শতাংশে। যা বাজার হারানোয় রেকর্ড বলা যায়।প্রতিষ্ঠানটির হিসাবে ২০১৮ সালে বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোন বিক্রি হয়েছে ১৪৯ কোটি ৮৩ লাখ। আগের বছর যা ছিল ১৫৫ কোটি ৮৮ লাখ।বিষয়টি নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে কাউন্টারপয়েন্ট রিসার্চের সহযোগী পরিচালক তরুণ পাঠক বলেন, এবারই প্রথমবারের মতো সারা বছর জুড়ে বিশ্বব্যাপী স্মার্টফোনের বাজার কমেছে। স্মার্টফোনের এমন পড়তি বাজার যুক্তরাষ্ট্র, চীন এবং পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোর মতো উন্নত বাজারে বিকল্প কোনকিছু প্রতিস্থাপনের ইঙ্গিত দেয়।তিনি বলেন, স্মার্টফোনের বিক্রি বাড়াতে প্রতিষ্ঠানগুলো সবসময় নানা ধরনের উদ্ভাবনী প্রযুক্তিতে জোর দিয়েছেন। এজন্য ডিভাইসে এআই, একাধিক ক্যামেরার ব্যবহার, ফুল-স্ক্রিন ডিসপ্লে, স্ক্রিনেই ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানারের মতো প্রযুক্তি যুক্ত করেছে। কিন্তু গ্রাহকরা চায় তাদের সাধ্যের মধ্যে টেকসই হ্যান্ডসেট। তবে এর পাশাপাশি নতুন ইনোভেশন ও ফিচার চায় তারা।

চীনের প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে হুয়াওয়ে, অপ্পো, ভিভো, শাওমি তাদের স্মার্টফোনগুলোর মান আরও বাড়িয়েছে। দিচ্ছে নতুন সব ফিচার। ফলে তারা যেমন স্থানীয়ভাবে সমাদৃত হচ্ছে তেমনি আবার বিশ্ববাজারেও আধিপত্য করতে শুরু করেছে।২০১৭ সালের চেয়ে ২০১৮ সালে এসে বেশিরভাব প্রতিষ্ঠানই তাদের স্মার্টফোন সরবরাহে কিছুটা পড়তি ভাব দেখা গেছে। গত বছরেও স্মার্টফোন সরবরাহে সবার উপরে ছিল স্যামসাং। প্রতিষ্ঠানটি সে বছর বিশ্ববাজারে সরবরাহ করেছে ২৯১ দশমিক ৮ মিলিয়ন স্মার্টফোন।

যা আগের বছরের চেয়ে কমেছে ৮ শতাংশ। আগের বছরে প্রতিষ্ঠানটির সরবরাহকৃত স্মার্টফোনের পরিমাণ ছিল ৩১৮ দশমিক ১ মিলিয়ন।একই ভাবে বাজার কমেছে আইফোনের। প্রতিষ্ঠানটি আগের বছরের চেয়ে ২০১৮ সালে ৪ শতাংশ কম স্মার্টফোন সরবরাহ করেছে।

গত বছর অ্যাপল ২০৬ দশমিক ৩ মিলিয়ন আইফোন সরবরাহ করে।বাজার বৃদ্ধির দিক থেকে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে চীনের প্রতিষ্ঠান হুয়াওয়ে। ২০১৭ সালে তারা ১৫৩ দশমিক ১ মিলিয়ন স্মার্টফোন সরবরাহ করেছিল। সেখানে ২০১৮ সালে সরবরাহ করেছে ২০৫ দশমিক ৩ মিলিয়ন হ্যান্ডসেট। সেই হিসাবে প্রতিষ্ঠানটি ৩৪ শতাংশ বেশি স্মার্টফোন সরবরাহ করেছে গত বছর।শাওমি ২০১৮ সালে ১২১ মিলিয়ন স্মার্টফোন বাজারে ছাড়ে। যাতে তাদের আগের বছরের চেয়ে প্রবৃদ্ধি বেশি হয়েছে ২৬ শতাংশ।গত বছর স্মার্টফোন সরবরাহে প্রবৃদ্ধি কিছুটা হলেও বেড়েছে অপ্পো, ভিভো, টেকনোর।তবে সবচেয়ে বেশি প্রবৃদ্ধি হয়েছে ফিনল্যান্ডের প্রতিষ্ঠান এইচএমডি গ্লোবালের নকিয়া ব্র্যান্ডের।

প্রতিষ্ঠানটি ২০১৭ সালে স্মার্টফোন সরবরাহ করেছিল ৭৭ লাখ। সেখানে পরের বছরে করেছে এক কোটি ৭৫ লাখ। আর এতে তাদের সরবরাহ প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১২৬ শতাংশ।তবে স্মার্টফোন সরবরাহে নিম্নগতি ছিল এলজি, লেনেভোর।২০১৮ সালের বাজার শেয়ারের হিসাবে সবার উপরে রয়েছে স্যামসাং। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বের স্মার্টফোন বাজারের ১৯ শতাংশ দখল করে আছে। এছাড়াও অ্যাপল ও হুয়াওয়ে ১৪ শতাংশ, শাওমি ও অপ্পো ৮ শতাংশ, ভিভো ৭ শতাংশ, এলজি ও লেনোভো ৩ শতাংশ করে, নকিয়া ও টেকনো এক শতাংশ করে এবং অন্যান্য ব্র্যান্ডগুলো ২২ শতাংশ বাজার দখল করে আছে।তবে স্মার্টফোনের প্রবৃদ্ধিতে যে ধাক্কা বিশ্বব্যাপী লেগেছে তার একটা ঝাপটা দেশের বাজারেও পড়েছে।
সোর্স: টেকশহর

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *